পছন্দের ফ্লিকার (১)

আপাতত ফ্লিকারেই ছবি / ফটো আপলোড করছি। যদিও আগে আরো কিছু সাইটে করতাম। পরে দেখা গেলো এতো এতো সাইট মেইনটেইন করা আসলে ঝামেলার ব্যাপার। এক ফেসবুকই দিনের অনেকটা সময় নষ্ট করে ফেলে। এ যেন ‘জেনে শুনে বিষ করেছি পান’ টাইপ অবস্থা।

এখন অবশ্য ফ্লিকারে প্রচুর ছবি দেখি। মাঝে মধ্যে অসাধারণ সব ছবি চোখে পরে। বিশেষ করে ল্যান্ডস্কেপ ছবি অনেকেই খূব দারুণ তুলেন। ইদানিং অবশ্য খূব ভাল পোর্ট্রেট ছবি চোখে পরে না। এছাড়া আছে নানা বিষয়ের ছবি।

ইদানিং ফ্লিকারে ছবি আপলোড করার পাশাপাশি বিভিন্ন জনের ফটোষ্ট্রিম অনুসরণ করছি। সেই সাথে নিয়মিত এক্সপ্লোর এ ঢু মারি। প্রচুর ছবি দেখা হয়। এক্সপ্লোর এ অবশ্য ইদানিং পাখির ছবি প্রচুর। নিজে প্রথমত চোখের সমস্যার কারণে এবং দ্বিতীয়ত বার্ড ফটোগ্রাফির উপযোগী লেন্সের অভাবে খূব একটা বার্ড ফটোগ্রাফি করি না। আমার এই চোখ দিয়ে গাছের ডালে বা অন্য কোথাও বসে থাকা পাখি চট করে ষ্পট করা বেশ কঠিন। যে কয়টি পাখির ছবি তুলেছি সেগুলো নিতান্তই খূব কাছে বসা ছিলো বলে তুলতে পেরেছিলাম।

বর্তমানে যাদের ফটোষ্ট্রিম অনুসরণ করছি, তাদের মধ্যে Pasquale Di Marzo অন্যতম। তার সব ছবি যে খূব ভাল তা হয়তো নয়। তবে তার ফুলের ছবি, ম্যাক্রো / ক্লোজআপ ছবি গুলো বেশ ভাল লাগে। বিশেষ করে বিভিন্ন ফুলের ছবি, কিছু ছবি আছে যেগুলো হয়তো পোষ্ট প্রসেসিং এ হালকা ব্লার করে দেন। একধরণের ড্রিমি লুক বলা চলে। যেমন এই ছবিটি

Pure Beauty

পাস্তার এই ছবিটিও দারুণ পছন্দের

PASTA

ইচ্ছে করলে ঘুরে আসতে পারেন তার ফটোষ্ট্রিম থেকে।

আপনার পছন্দের ফ্লিকার একাউন্টগুলি শেয়ার করতে পারেন।
আজ এপর্যন্তই। ভাল থাকবেন।

রিফাত জামিল ইউসুফজাই

জাতিতে বাঙ্গালী, তবে পূর্ব পূরুষরা নাকি এসেছিলো আফগানিস্তান থেকে - পাঠান ওসমান খানের নেতৃত্বে মোঘলদের বিরুদ্ধে লড়াই করতে। লড়াই এ ওসমান খান নিহত এবং তার বাহিনী পরাজিত ও পর্যূদস্ত হয়ে ছড়িয়ে পড়ে টাঙ্গাইলের ২২ গ্রামে। একসময় কালিহাতি উপজেলার চারাণ গ্রামে থিতু হয় তাদেরই কোন একজন। এখন আমি থাকি বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকায়। কোন এককালে শখ ছিলো শর্টওয়েভ রেডিও শোনা। প্রথম বিদেশ ভ্রমণে একমাত্র কাজ ছিলো একটি ডিজিটাল রেডিও কেনা। ১৯৯০ সালে ষ্টকহোমে কেনা সেই ফিলিপস ডি ২৯৩৫ রেডিও এখনও আছে। দিন-রাত রেডিও শুনে রিসেপশন রিপোর্ট পাঠানো আর QSL কার্ড সংগ্রহ করা - নেশার মতো ছিলো সেসময়। আস্তে আস্তে সেই শখ থিতু হয়ে আসে। জায়গা নেয় ছবি তোলা। এখনও শিখছি এবং তুলছি নানা রকম ছবি। কয়েক মাস ধরে শখ হয়েছে ক্র্যাফটিং এর। মূলত গয়না এবং নানা রকম কার্ড তৈরী, সাথে এক-আধটু স্ক্র্যাপবুকিং। সাথে মাঝে মধ্যে ব্লগ লেখা আর জাবর কাটা। এই নিয়েই চলছে জীবন বেশ।