ফটোশপ : ব্যাকগ্রাউন্ড পরিবর্তন

ফটোগ্রাফিতে ফটোশপ বা লাইটরুম এর ব্যবহার ব্যাপক। ক্যামেরায় RAW ফরম্যাটে ছবি তুললে সেটি প্রসেসিং করে দেখার উপযোগী করতে হলে ফটোশপ / লাইটরুম প্রয়োজন। যদিও এই কাজের জন্য অন্য সফটওয়্যার, বিশেষ করে ক্যামেরা কোম্পানিগুলির তাদের নিজেদের সফটওয়্যারও আছে। তারপরও ফটোশপ এবং লাইরুম অনেকেই ব্যবহার করছেন। আর আমাদের দেশে তো পাইরেটেড সফটওয়্যার আমরা হরহামেশাই ব্যবহার করছি। আমি সাধারণত ফটোশপই ব্যবহার করি, Adobe Camera Raw একদম শুরু থেকেই ব্যবহার করে আসছি। ফটোশপের বাকি ফিচার গুলো আসলে তেমনভাবে এতোদিন ব্যবহার করা হয়নি। হঠাৎ করে মাথায় এলো ফটোশপ আরেকটু ভালভাবে শেখা দরকার। আপাতত শিখছি ইউটিউব ভিডিও দেখে, সাথে আছে কিছু ইবুক। আর কিছু বই কেনার ইচ্ছে আছে, তবে আরেকটু পরে। এর মধ্যে উডেমি এর একটা কোর্স নিয়েছি, তবে সেটি এখনও শুরু করা হয়ে উঠেনি।

টুলসগুলোর ব্যবহার শেখার পাশাপাশি ফটো সংক্রান্ত টুকটাক কিছু কাজও শেখার চেষ্টা করছি। ফটো থেকে কিভাবে ব্যাকগ্রাউন্ড অপসারণ করা যায় সেটি শিখলাম আজ। আমি নিজের তোলা ফটো ব্যবহারের চেষ্টা করি, তবে আজ গোটা দুয়েক ছবি ডাউনলোড করেছি Pixabay থেকে। আজ সেগুলো নিয়েই কাজ করলাম।

ব্যাকগ্রাউন্ড বিভিন্ন ভাবেই অপসারণ করা যায়। এক হলো ছবির সাবজেক্ট / ব্যাকগ্রাউন্ড সিলেক্ট করে প্রয়োজনীয় অংশটি রেখে বাকিটা অপসারণ করা। এজন্য সিলেকশন টুল, ল্যাসো টুল, পেন টুল ইত্যাদি আছে। পেনটুল দিয়ে সিলেকশন খূব ভালভাবে করা যায়। আবার এসব টুল ব্যবহার না করেও মোটামুটি কয়েক ক্লিকেও কাজটি করা যায়। যদিও সব ক্ষেত্রে খূব ভাল ফলাফল হয়তো আপনি পাবেন না। বিশেষ করে হিবিজিবি ব্যাকগ্রাউন্ডে খোলা / আউলানো চুল থাকলে সেটি একটি বিশাল সমস্যা। তারপরও দ্রুত কাজ করার জন্য এই পদ্ধতি অনেক সময় কাজে লাগে।

আমি আপাতত এডোবি ফটোশপ সিসি ২০২০ ব্যবহার করছি। এই পদ্ধতি আপনি সিসি ২০১৯ এ পাবেন। তবে এর আগের ভাির্শনে পাবেন কিনা জানা নাই।

ফটোশপ চালু করে প্রথম ছবিটি ওপেন করি। নিচের ছবির মতো দেখাবে।এবার দ্বিতীয় ছবিটি ওপেন করি। এরকম দেখাবে।
আমাদের কাজ হবে ছেলেটির পিছনের ব্যাকগ্রাউন্ড রিমূভ করে রেললাইনের এই ছবিটি দিয়ে প্রতিস্থাপন করা। প্রথম ছবিটি কপি করে আমরা দ্বিতীয় ছবিটির উপর পেষ্ট করবো। প্রথম ছবিতে থাকা অবস্থায় প্রথমে মেনু থেকে Select এ ক্লিক করি। যে নতুন মেনু আসবে সেখান থেকে All এ ক্লিক করি। পুরো ছবিটি সিলেক্ট হবে (ছবির চারিদিকে নীল লাইন দেখতে পাবেন)। এবার মেনু থেকে Edit এ ক্লিক করি, সেখান থেকে Copy, পুরো ছবিটি ক্লিপবোর্ডে কপি হয়ে যাবে।

এবার দ্বিতীয় ছবিতে ফিরে আসি। এখন Edit মেনু থেকে Paste এ ক্লিক করি। প্রথম ছবিটি দ্বিতীয় ছবির উপর চলে আসবে। আপনি যদি পাশের Layer প্যালেট দেখেন তবে দেখতে পাবেন ২টি ছবি আলাদা ২টি লেয়ারে আছে। এরকম দেখাবে

এবার টুলস থেকে Rectangular Marquee Tool সিলেক্ট করি। Menu Bar এর নিচে যে Option Bar আছে সেখানে সবশেষ অপশনটি খেয়াল করি। Select and Mask ক্লিক করলে উপরের ছবি অর্থাৎ বাচ্চাটির ছবি সিলেক্ট হয়ে পিছনের রেললাইনের ছবি হালকাভাবে দৃশ্যমান হবে। পরিবর্তিত Option Bar আরেকটি অপশন দেখা যাবে। Select Subject এ ক্লিক করলে দেখা যাবে ছবির ছেলেটি সিলেক্ট হয়ে গেছে। সেই সাথে পিছনের ছবিটি আর দেখা যাচ্ছে না।

এখন পাশের প্রোপার্টিজ প্যালেটের একদম নিচের দিকে দেখুন OKবাটন আছে। সেটিতে ক্লিক করলেই দেখবেন ছেলেটির চারিদিকের ব্যাকগ্রাউন্ড অপসারিত হয়ে পিছনের ছবিটি দেখা যাচ্ছে। আপনি এখন মুভ টুল ব্যবহার করে ছেলেটিকে বামে-ডানে প্রয়োজন মতো সরিয়ে সেট করে দিতে পারেন। সবশেষে জেপিউজি’তে সেভ করে ফেলুন।

কাজ শেষ। ফটো ক্রেডিট
প্রথম ছবি : Joshua Woroniecki / Pixabay
দ্বিতীয় ছবি : Larisa Koshkina / Pixabay

 

 

রিফাত জামিল ইউসুফজাই

জাতিতে বাঙ্গালী, তবে পূর্ব পূরুষরা নাকি এসেছিলো আফগানিস্তান থেকে - পাঠান ওসমান খানের নেতৃত্বে মোঘলদের বিরুদ্ধে লড়াই করতে। লড়াই এ ওসমান খান নিহত এবং তার বাহিনী পরাজিত ও পর্যূদস্ত হয়ে ছড়িয়ে পড়ে টাঙ্গাইলের ২২ গ্রামে। একসময় কালিহাতি উপজেলার চারাণ গ্রামে থিতু হয় তাদেরই কোন একজন। এখন আমি থাকি বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকায়। কোন এককালে শখ ছিলো শর্টওয়েভ রেডিও শোনা। প্রথম বিদেশ ভ্রমণে একমাত্র কাজ ছিলো একটি ডিজিটাল রেডিও কেনা। ১৯৯০ সালে ষ্টকহোমে কেনা সেই ফিলিপস ডি ২৯৩৫ রেডিও এখনও আছে। দিন-রাত রেডিও শুনে রিসেপশন রিপোর্ট পাঠানো আর QSL কার্ড সংগ্রহ করা - নেশার মতো ছিলো সেসময়। আস্তে আস্তে সেই শখ থিতু হয়ে আসে। জায়গা নেয় ছবি তোলা। এখনও শিখছি এবং তুলছি নানা রকম ছবি। কয়েক মাস ধরে শখ হয়েছে ক্র্যাফটিং এর। মূলত গয়না এবং নানা রকম কার্ড তৈরী, সাথে এক-আধটু স্ক্র্যাপবুকিং। সাথে মাঝে মধ্যে ব্লগ লেখা আর জাবর কাটা। এই নিয়েই চলছে জীবন বেশ।