ক্রিয়েট ক্র্যাফট

ক্র্যাফটিং ম্যাটেরিয়াল সাপ্লায়ার রিভিউ : ক্রিয়েট ক্র্যাফট

আমি শুরু থেকে এখন পর্যন্ত যে কয়টি ফেসবুক গ্রুপ থেকে প্রায় নিয়মিত ক্র্যাফটিং এর জিনিসপত্র কিনছি, তার মধ্যে ক্রিয়েট ক্র্যাফট অন্যতম। রুমানা রহমান ক্র্যাফটিং এর নানা জিনিসপত্র দিয়ে সাজিয়েছেন তার এই গ্রুপ। এখানে আরেকটি তথ্য না দিলেই নয়, ক্রিয়েট ক্র্যাফট মনে হয় বাংলাদেশের ক্র্যাফটিং ম্যাটেরিয়াল বিক্রয়কারী একমাত্র ফেসবুক গ্রুপ যাদের একটি ফিজিক্যাল শপ আছে। মানে আপনি ইচ্ছে করলে স্বশরীরে নিজের চোখে জিনিস দেখে পছন্দ করে তারপর কিনতে পারবেন।

ক্রিয়েট ক্র্যাফটে কি কি জিনিস পাবেন ? কয়েকটি জিনিস নিয়মিতই পাবেন যেমন – ছোট-বড় বিভিন্ন ধরণের পাঞ্চ, বিভিন্ন ধরণের চার্মস, বিভিন্ন ডিজাইনের ওয়াসি টেপস এবং বিভিন্ন ষ্ট্যাম্পস এবং ষ্ট্যাম্প প্যাড। এর বাইরেও কিছু কিছু জিনিস তারা সময় সময় নিয়ে আসে, যেমন সাম্প্রতিক সময়ে তারা ক্লে, ক্লে মোল্ড, বিভিন্ন রং এর ফক্স লেদার কর্ড, পাইপ ক্লিনার। এছাড়া ক্র্যাফটিং এর জন্য প্রয়োজনীয় গ্লু গান এবং গ্লু ষ্টিক আছে তাদের নিয়মিত ষ্টকে। আরো কিছু জিনিস পাবেন যেমন – ইভা ফোম শিট, ফেল্ট শিট, ডিএমসি সুতা (এমব্রোডয়ারি সুতা), উল, মাস্কিং টেপ, ডাবল সাইডেড টেপ, বিভিন্ন ধরণের ফেদার, ক্রশে হুক, ম্যানুয়াল শ্রেডার, পিভিসি বোর্ড ইত্যাদি। আর্টিফিশিয়াল পার্ল, উডেন বিডস, কৃষ্টাল বিডস ও মাঝে মধ্যে পাবেন।

এছাড়া রুমানা রহমান নিজে ড্রিম ক্যাচার তৈরী করে থাকেন। আপনি ড্রিম ক্যাচার এ আগ্রহী হলে গ্রুপে অথবা রুমানা রহমানের সাথে সরাসরি যোগাযোগ করতে পারেন।

ঢাকায় তাদের ডেলিভারি চার্জ ৬০ – ৮০ টাকা, ঢাকার বাইরে (On conditional delivery) ৮০ – ১২০ টাকা। ঢাকায় ৩০০০ টাকা পর্যন্ত ক্যাশ অন ডেলিভারীর ব্যবস্থা আছে। তাদের সেল পয়েণ্টের ঠিকানা হলো ১১১/১, ভিআইপি শপিং ষেন্টার (২য় তলা), স্যুট নাম্বার ৫, নিউ এলিফ্যান্ট রোড, ঢাকা।

ফেসবুক গ্রুপ : Create Craft
ফেসবুক পেজ : Create Craft

ফেসবুক মন্তব্য

রিফাত জামিল ইউসুফজাই

জাতিতে বাঙ্গালী, তবে পূর্ব পূরুষরা নাকি এসেছিলো আফগানিস্তান থেকে - পাঠান ওসমান খানের নেতৃত্বে মোঘলদের বিরুদ্ধে লড়াই করতে। লড়াই এ ওসমান খান নিহত এবং তার বাহিনী পরাজিত ও পর্যূদস্ত হয়ে ছড়িয়ে পড়ে টাঙ্গাইলের ২২ গ্রামে। একসময় কালিহাতি উপজেলার চারাণ গ্রামে থিতু হয় তাদেরই কোন একজন। এখন আমি থাকি বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকায়। কোন এককালে শখ ছিলো শর্টওয়েভ রেডিও শোনা। প্রথম বিদেশ ভ্রমণে একমাত্র কাজ ছিলো একটি ডিজিটাল রেডিও কেনা। ১৯৯০ সালে ষ্টকহোমে কেনা সেই ফিলিপস ডি ২৯৩৫ রেডিও এখনও আছে। দিন-রাত রেডিও শুনে রিসেপশন রিপোর্ট পাঠানো আর QSL কার্ড সংগ্রহ করা - নেশার মতো ছিলো সেসময়। আস্তে আস্তে সেই শখ থিতু হয়ে আসে। জায়গা নেয় ছবি তোলা। এখনও শিখছি এবং তুলছি নানা রকম ছবি। কয়েক মাস ধরে শখ হয়েছে ক্র্যাফটিং এর। মূলত গয়না এবং নানা রকম কার্ড তৈরী, সাথে এক-আধটু স্ক্র্যাপবুকিং। সাথে মাঝে মধ্যে ব্লগ লেখা আর জাবর কাটা। এই নিয়েই চলছে জীবন বেশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.